৩১ শয্যা থেকে ৫০ শয্যায় উন্নীত করা হলেও সাত বছরেও মিলেনি জনবল নিয়োগ

0
660

রাতে দুইজন ডাক্তার আর দিনে দুইজন ডাক্তার দিয়ে চলছে ৫০ শয্যার হালুয়াঘাট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স। হাসপাতাল সুত্রে জানা যায়, কর্মরত আটজনের মাঝে তিনজন হাসপাতালে অনুপস্থিত। চিকিৎসক হারুন-উর-রশিদ তিনবৎসর যাবৎ ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেষণে রয়েছেন। অপর আরেক চিকিৎসক তনি তরফদার ২০১৪ সালের নভেম্বর মাস থেকে অনুপস্থিত। অপর আরেক চিকিৎসক তাহসিনা তাসনিম দুইমাসের প্রশিক্ষনে বাহিরে আছেন। আবাসিক চিকিৎসক (আর এম ও) তাও খালি। বাকী চারজন চিকিৎসকের মাঝে দিনে দুই আর রাতে দুইজন ডাক্তার দিয়ে খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়ে চলছে হালুয়াঘাত স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসা সেবা। ফলে চিকিৎসক সংকটে ভুগছে হালুয়াঘাট উপজেলার ৫ লক্ষাধিক মানুষের জন্যে এ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সটি।


২০১০ সালে ৩১ শয্যা থেকে ৫০ শয্যায় উন্নীত করা হলেও সাত বছরেও মিলেনি জনবল নিয়োগের অনুমোদন। সার্জারি, গাইনি বিভাগ চালু থাকলেও নেই বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক। ফলে বছরের পর বছর রয়েছে অস্ত্রোপচার বন্ধ। জেনারেটর বিকল। এক্সরে নষ্ট।


সরেজমিনে দুপুর বেলায় হাসপাতালে গিয়ে দেখা যায় চিকিৎসা নিতে আসা রোগির ভিড়। শতাধিক রোগী ডাক্তারকে ঘিরে দাঁড়িয়ে আছে চিকিৎসা নেওয়ার জন্যে। ব্যাবস্থা দিচ্ছেন মাত্র দু’জন ডাক্তার। অন্য কক্ষে ঝুলছে তালা। চিকিৎসা নিতে আসা সংড়া গ্রামের গৃহিনী রমিছা খাতুন বলেন, রোগী দেইখা সময় পাইতাছেনা। হাসপাতালে যদি ১০-১২ জন ডাক্তার থাকতো তাহলে আমাগর এত সময় বইয়া থাহুন লাগতনা।


উপজেলার টিকুরিয়া গ্রামের কৃষক তোফাজ্জল হোসেন তার অসুস্থ স্ত্রী তহুরা বেগমকে (৫০) কে নিয়ে হাসপাতালে আসলে আধা ঘন্টা বসে থাকার পর ডাক্টারের দেখা পান। চিকিৎসক তহুরা খাতুনকে রক্তের তিনটি নমুনা পরীক্ষা করতে দিলে তিনি একটি পাইভেট ক্লিনিকে যান। সেখান থেকে ফিরে এসে তোফাজ্জল হোসেন বলেন, সরকারী হাসপাতালে আইলেও কোন সুযোগ সুবিধা নাই। ডাক্তার আছে দু’জন। ডাক্তার বাইরে থেইকা রক্ত পরীক্ষা করবার দিছে। হেইন টেহা চাইছে ১ হাজার ৫ শত। এত টেহা দিয়া রক্ত পরীক্ষা করার টেহা আমার নাই। দেড়ডার সময় হাসপাতালে গিয়া দেহি ডাক্তার গেছেগা।


উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাক্তার এম.এ কাদের বলেন, চিকিৎসক সংকটের কারনে আমাকে প্রশাসনিক কাজের পাশাপাশি প্রতিদিন ৪০ থেকে ৫০ জন রোগীও দেখতে হয়। রোগীর চাপে প্রতিদিন হিমসিম খেতে হচ্ছে ডাক্তারদের। তিনি বলেন, চিকিৎসক চেয়ে জেলা সিভিল সার্জন বরাবরে আবেদন করা হয়েছে। এছাড়া অনুপস্থিত চিকিৎসকের ব্যাপারে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে। ময়মমনসিংহের সিভিল সার্জন এ কে

এম আব্দুর রব জানান, তিনি হালুয়াঘাট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স পরিদর্শন করেছেন। চিকিৎসক সংকটের বিষয়ে তিনি অবগত আছেন। চিকিৎসক সহ অন্যান্য পদে লোক নিয়োগের ব্যাপারে দ্রুত পদক্ষেপ নিবেন বলে তিনি জানান।

মন্তব্য করুন