গফরগাঁওয়ে জোয়াহেরুল ইসলাম মোল্লার বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির অভিযোগ

0
722

ময়মনসিংহের গফরগাঁও কারিগরি স্কুল অ্যান্ড কলেজের এক নারী প্রভাষককে উত্ত্যক্ত ও যৌন হয়রানির অভিযোগ উঠেছে একই কলেজের অধ্যক্ষ মোহাম্মদ জোয়াহেরুল ইসলাম মোল্লার বিরুদ্ধে।

সোমবার দুপুরে এ ঘটনার প্রতিবাদে অধ্যক্ষের অপসারণ ও বিচারের দাবিতে কলেজসংলগ্ন গফরগাঁও-ময়মনসিংহ সড়ক প্রায় এক ঘণ্টা অবরোধ করে বিক্ষোভ প্রদর্শন করে শিক্ষার্থীরা।

কলেজ সূত্রে জানা যায়, গফরগাঁও কারিগরি স্কুল অ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষ মোহাম্মদ জোয়াহেরুল ইসলাম মোল্লা তার অধীনস্থ সহকর্মী নারী প্রভাষককে দীর্ঘদিন ধরে উত্ত্যক্ত করা, গালিগালাজসহ নানাভাবে যৌন হয়রানি করে আসছিলেন। ওই প্রভাষকসহ অন্য সহকর্মী শিক্ষকরা এ ব্যাপারে প্রতিবাদ করলে অধ্যক্ষ মোহাম্মদ জোয়াহেরুল ইসলাম মোল্লা তাদের সঙ্গেও খারাপ আচরণ করেন। ইতোপূর্বে ওই প্রভাষক পূর্ববর্তী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সিদ্ধার্থ শংকর কুণ্ডুর কাছে লিখিত অভিযোগ দেন। এছাড়া সম্প্রতি বিদ্যালয়ের সব শিক্ষক বর্তমান নির্বাহী কর্মকর্তা ডা. শামীম রহমানের সঙ্গে তার দপ্তরে দেখা করে এ ব্যাপারে প্রতিকার দাবি করেন।

ছবি: সংগৃহিত

বিষয়টি জানাজানি হলে শিক্ষার্থীদের মধ্যে অসন্তোষ ও ক্ষোভ দেখা দেয়। সোমবার শিক্ষার্থীরা ক্লাস বর্জন করে কলেজসংলগ্ন গফরগাঁও-ময়মনসিংহ সড়ক প্রায় এ ঘণ্টা অবরোধ করে বিক্ষোভ প্রদর্শন করেন। এ সময় ক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা অধ্যক্ষ মোহাম্মদ জোয়াহেরুল ইসলাম মোল্লার অপসারণ ও বিচার দাবি করে স্লোগান দেন। শিক্ষার্থীরা অভিযোগ করেন, এ ঘটনার প্রতিবাদ করায় অধ্যক্ষ শিক্ষার্থীদের বার্ষিক পরীক্ষায় ফেল করানোর হুমকি দেন।

গফরগাঁও কারিগরি স্কুল অ্যান্ড কলেজের ওই নারী প্রভাষক বলেন, “অধ্যক্ষ দীর্ঘদিন ধরে আমার সঙ্গে এই আচরণ করছেন। একবার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর লিখিত অভিযোগ করেছি। সম্প্রতি নির্বাহী কর্মকর্তা স্যারের সঙ্গে দেখা করে প্রতিকার চেয়েছি। এছাড়া আমার স্বামী অধ্যক্ষ মহোদয় ও তার স্ত্রীর সঙ্গে কথা বলেছেন। কিন্তু অধ্যক্ষের আচরণের কোনো পরিবর্তন হয়নি।”

এ ব্যাপারে গফরগাঁও কারিগরি স্কুল অ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষ মোহাম্মদ জোয়াহেরুল ইসলাম মোল্লার কাছে জানতে চাইলে তিনি তার বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ অস্বীকার করেন। তিনি বলেন, “কলেজের ভালোর জন্য শিক্ষা কার্যক্রম নিয়ে শিক্ষকদের চাপ দেয়ায় তারা সবাই আমার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়েছেন।”

এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও গফরগাঁও কারিগরি স্কুল অ্যান্ড কলেজের সভাপতি ডাক্তার শামীম রহমান বলেন, “তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।”

মন্তব্য করুন