ভালুকায় কোটি কোটি টাকা মূল্যের বনভূমি দখল করে গড়ে উঠছে বহুতল ভবন

0
856

ভালুকায় কোটি কোটি টাকা মূল্যের বনভূমি দখল করে একের পর এক গড়ে উঠছে বহুতল ভবন। সংশ্লিষ্ট বিভাগের নাকের ডগায় এসব ভবন গড়ে উঠলেও রহস্যজনক কারণে দখলকারীদের বিরুদ্ধে আইনী কোন ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। এক বন কর্মকর্তার ভাই মহাসড়ক ঘেষে নির্মাণ করছেন পাঁচতলা বাড়ি ও দোকানপাট। পাশেই নিার্মণ হচ্ছে আরেকটি বহুতল ভবণ।

খোঁজ নিয়ে স্থানীয়দের সাথে কথা বলে জানা গেছে, সম্প্রতি ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের পাশে ভালুকা উপজেলার হাজিরবাজারে ধামশুর মৌজার ১০৪৬ নম্বর দাগে কয়েক কোটি টাকা মূল্যের বনভূমি দখলে নিয়ে পাঁচতলা বাড়ি ও দোকানপাট নির্মাণ করা হচ্ছে। বর্তমান কর্মরত ভালুকা রেঞ্জের বনকর্মকর্তা মো: আব্দুল কাদেরের ছোট ভাই মো: সাদির উদ্দিন ওই বাড়িটি নির্মাণ করছেন বলে স্থাণীয় লোকজন জানান। ইতোমধ্যে তিনি দ্বিতলা পর্যন্ত ভবণের কাজ শেষ করেছেন। পাশেই সাবেক মেম্বার শাহাব উদ্দিন কুমারের ভাই আক্কাস আলী ওরফে আক্কু মিয়া একই দাগে পাঁচতলা ভবণ নির্মানের উদ্দেশ্যে পাইরিং শেষ করে খুঁটি নির্মাণের জন্য রড স্থাপন করেছেন। তেমনিভাবে ওই দাগে বনভূমি দখলে নিয়ে অন্তত ৮ থেকে ১০ টি বহুতল ভবন নির্মানের কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন বিভিন্নজন।

এ ব্যাপারে অভিযুক্ত আক্কাস উদ্দিনের ওরফে আক্কুর ভাই সাবেক মেম্বার শাহাব উদ্দিন কুমার জানান, এই মৌজার সব ভূমিই বনের দাবিকৃত। আমরা বহু বছর ধরে এখানে বসবাস করছি। এখানকার বাসিন্দারা সকলেই বনের জমিতেই বাসাবাড়ি নির্মাণ করে বসবাস করে আসছেন।

অপর বাড়ি নির্মানকারী সাদির উদ্দিনের ভাই বর্তমান ভালুকা রেঞ্জের দায়িত্বে নিয়োজিত রেঞ্জ কর্মকর্তা মো: আব্দুল কাদের জানান, আমার ভাই আমার কথা শুনেননি। বার বার নিষেধ করা সত্বেও সে বাড়ি নির্মাণ করেছেন।

ময়মনসিংহ দক্ষিণ ভালুকা অঞ্চলের সহকারী বন সংরক্ষক (এসিএফ) প্রাণতোষ রায় জানান, অবৈধভাবে বনের জমি দখল করে বহুতল ভবণ নির্মাণকারীদের বিরুদ্ধে অচিরেই আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হচ্ছে। বন কর্মকর্তার ভাই কর্তৃক বাড়ি নির্মাণের ব্যাপারে তিনি বলেন, খোঁজ নিয়ে দেখছি, ঘটনার সত্যতা পেলে এ ব্যাপারে বিভাগীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

মন্তব্য করুন