ইতিহাস মুছে ফেলা যায় না-প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

0
925
অনলাইন ডেস্ক : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, পঁচাত্তরের ট্রাজেডির পর বাংলাদেশ থেকে বঙ্গবন্ধুর নাম মুছে ফেলার শত চেষ্টা হলেও ইতিহাসে যার নাম অক্ষয়, সেই ইতিহাস চাইলেও তারা মুছে ফেলতে পারেনি। ইতিহাস মুছে ফেলা যায় না।
এখন এই ভাষণ ইউনেস্কোর বিশ্ব ঐতিহ্যের দলিল হিসেবে স্বীকৃতি পেয়েছে। কিন্তু যারা এই ভাষণ মুছে ফেলতে চেয়েছিল, তাদের কি এখন লজ্জা হয় না? শনিবার (১৮ নভেম্বর) বিকেলে বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ ইউনেস্কোর স্বীকৃতি পাওয়ায় এই বৈশ্বিক স্বীকৃতি উদযাপনে রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে নাগরিক সমাবেশে এসব কথা বলেন বঙ্গবন্ধুকন্যা। এই নাগরিক সমাবেশের ডাক দেয় ‘নাগরিক কমিটি’।
মুক্তিযুদ্ধে বিজয়ী জাতি হওয়ার পরেও বাংলাদেশের মানুষ দীর্ঘ সময় স্বাধীনতার সঠিক ইতিহাস জানতে পারেনি বলে দুঃখ প্রকাশ করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আর সে কারণে স্বাধীনতার বিপক্ষের শক্তি যেন আর কখনো ক্ষমতায় এসে ইতিহাস বিকৃতি ঘটাতে না পারে, সে জন্য সবার প্রতি অনুরোধ জানান তিনি।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ৭ মার্চের ভাষণ বিশ্ব স্বীকৃতি পাওয়ায় বাংলাদেশ মর্যাদার আসনে অধিষ্ঠিত হয়েছে। এজন্য আমরা গর্বিত জাতি। আমাদের উন্নত শির যেন আর কোনোদিন পরাভূত না হয় সেজন্য সামনের দিকে এগিয়ে যেতে হবে। বাংলাদেশ মর্যাদার আসনে অধিষ্ঠিত থাকবে, এর মধ্য দিয়ে বাঙালি জাতি এগিয়ে যাবে, এটাই হোক আজকের প্রতিজ্ঞা। প্রধানমন্ত্রী বলেন, ইউনেস্কোর এই স্বীকৃতি শুধু স্বীকৃতি নয়। ইতিহাসও যে প্রতিশোধ নেয় তার প্রমাণ। ইতিহাস ঠিকই তার সত্য অবস্থান করে নেয়। শুধু বাংলাদেশ নয়, আজ পুরো বাঙালি জাতি, মুক্তিযুদ্ধে আত্মদানকারী শহীদেরা, সবাই সম্মানিত হয়েছে। ইতিহাস বিকৃতির জন্য পাকিস্তানের এ দেশীয় দোসরদের অভিযুক্ত করে বঙ্গবন্ধু কন্যা বলেন, ওই পাকিস্তানের খোশামোদী, তোসামোদী, চাটুকার-প্রেতাত্মারা ৭ মার্চের ভাষণ পর্যন্ত মুছে ফেলতে চেয়েছিল।
বঙ্গবন্ধু হত্যার পর একটা সময় এই ভাষণ পর্যন্ত বাজানো নিষিদ্ধ করা হয়েছিল। কিন্তু মুজিব সৈনিকেরা শত নির্যাতন-নিপীড়নের শিকার হয়েও এই ভাষণ বাজাতে থাকেন, এই ভাষণকে বাঁচিয়ে রাখেন। স্বাধীনতাবিরোধী শক্তি যেন আর কখনও মাথাচাড়া দিয়ে ওঠার সুযোগ না পায়, সেজন্য দেশবাসীকে ঐক্যবদ্ধ থাকার আহ্বান জানান তিনি।
অধ্যাপক আনিসুজ্জামানের সভাপতিত্বে এই সমাবেশে বক্তব্য রাখেন শহীদ জায়া শ্যামলী নাসরীন চৌধুরী, অধ্যাপক রফিকুল হক, অধ্যাপক মুহম্মদ জাফর ইকবাল, সাংবাদিক গোলাম সারওয়ার। বাংলাদেশে ইউনেস্কোর আবাসিক প্রতিনিধিও অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন। ইউনেস্কোকে ধন্যবাদ জানিয়ে বক্তব্য রাখেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।
যে স্থানটিতে দাঁড়িয়ে বাঙালির স্বাধীনতা সংগ্রামের দিশা দিয়েছিলেন জাতির জনক শেখ মুজিবুর রহমান, তার সেই ভাষণের বৈশ্বিক স্বীকৃতি উদযাপনের সমাবেশ ঘিরে সেই উদ্যান মুখর ‘জয় বাংলা’ স্লোগানে। উল্লেখ্য, বিভিন্ন দেশের মোট ৭৭টি ঐতিহাসিক নথি ও প্রামাণ্য দলিলের সঙ্গে ৪৫ বছর আগে ১৯৭১ সালের ৭ই মার্চে বঙ্গবন্ধুর দেয়া ১৮ মিনিটের সেই ভাষণকে গত মাসে ‘ডকুমেন্টারি হেরিটেজ’ হিসেবে ‘মেমোরি অফ দ্য ওয়ার্ল্ড ইন্টারন্যাশনাল রেজিস্টারে’ যুক্ত করে নেয় ইউনেস্কো।

মন্তব্য করুন