ময়মনসিংহে বিকাশের ৩০ লাখ টাকা চুরি-২৭ লাখ ৮৫ হাজার টাকা উদ্ধার, আটক-২

ময়মনসিংহ কোতোয়ালী মডেল থানার অভিযানে বিকাশের চুরি হওয়া টাকা উদ্ধার আসামী গ্রেফতার। আটককৃতরা হলেন আসামী মো: স্বপন, পিতা: জুলফিকার, সাং ভালুকা, রাহাত, পিতা: মো আলি উসমান, সাং তারাইল।

কোতোয়ালী মডেল থানা সুত্রে জানাযায়, ময়মনসিংহ চ্যানেল এন্টারপ্রাইজ নিউক্ত প্রতিষ্ঠানের প্রোপাইটার হাজী মো: রফিকুল ইসলাম মিউচুয়্যাল ব্যাংকের চেক নং-CDB4874557 ৮০ লাখ টাকা উল্লেখ করে নিজ প্রতিষ্ঠানের ডিষ্টিবিউটার কমপ্লাইল অফিসার স্বপন মিয়া(২৪), পাঠানো হয় টাকা উত্তোলন করার জন্য। স্বপন মিয়া গত ১৪ সেপ্টেমবর ট্রাস্ট ব্যাংক থেকে ৮০ লাখ উত্তলন করে নিজ প্রতিষ্ঠানের স্যালস অফিস্যার মিজানুর রহমানের গাড়িতে ৫০ লক্ষ টাকা কোম্পানির গাড়িতে তুলে দেয়। স্বপন মিয়া (২৪), তার পরিচিত বন্ধু এহসানুল হক রাহাত(২২), পরস্পর যোগ সাজসে ৩০ লক্ষ টাকা নিয়ে চ্যানেল এন্টারপ্রাইজ প্রতিষ্ঠানে জমা না দিয়ে আত্মসাৎ করে নিরুদ্দেশ হয়। উক্ত বিষয়ে চ্যানেল এন্টারপ্রাইজ ক্যাশিয়ার নোহান ইসলাম সোহেল বাদী হয়ে কোতোয়ালী মডেল থানায় অভিযোগ প্রদান করেন।

আসামী গ্রেফতার ও টাকা উদ্ধারের বিষয়টি বিশেষ গুরুত্ব হিসাবে কোতোয়ালী মডেল থানার ওসি ফিরোজ তালুকদারের নির্দেশে ১নং ফাড়ি ইনচার্জ দুলাল আকন্দকে তদন্তবার দেওয়া হয়। পরবতীতে কোতোয়ালী মডেল থানার চৌকশ পুলিশ অফিসার এসআই মিনহাজ ও এসআই নিরুপম নাগ কুমিল্লা জেলার বাদুর তলা এলাকার জনৈক শাকিলের বাসা থেকে ২৬ লক্ষা টাকাসহ আসামী স্বপন মিয়াকে গ্রেফতার করে। স্বপন মিয়ার সহযোগী তার বন্ধু এহসানুল হক রাহাত(২২),কে কিশোরগঞ্জ জেলা অভিযান পরিচালনা করে ১লক্ষ ৮৫ হাজার টাকাসহ গ্রেফতার করা হয়। উক্ত ঘটনায় ৩০ লক্ষ টাকার মধ্যে ২৭ লক্ষ ৮৫ হাজার টাকা উদ্ধার করে কোতোয়ালী মডেল থানা পুলিশ।

কোতোয়ালী মডেল থানার এস আই মিনহাজ বলেন, এ বিষয়ে কোতোয়ালী মডেল থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। আসামীরা নিজের দোষ স্বীকার করে বিজ্ঞ আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমুলক জবানবন্দী দিয়েছে। মামলা নাম্বার : (৬২),১৬,০৯,২০২০।