হোসেন আলীর একাধিক গুম খুনের অভিযোগ- তদন্ত করে শাস্তির দাবী কৃষ্টপুর এলাকাবাসী

0
2006

স্টাফ রিপোটার : ময়মনসিংহ নগরীর কৃষ্টপুর সরকারী আদর্শ কলোনিতে হত্যাসহ নানা অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে জাতীয় পার্টি নেতা হোসেন আলী । তদন্ত করে শ্রীঘই ব্যবস্থা না নিলে আন্দোলন যাবেন বলে হুশিয়ারী প্রদান করেছেন কৃষ্টপুরের সাধারন মানুষ।

সুত্র থেকে জানাযায়, কৃষ্টপুরের বসবাসরত হোসেন আলী ও তার ছেলেরা বিভিন্ন চোরদের সাথে সক্ষতা গড়ে তুলে চুরির মোবাইল কিনে বিক্রি করতো। এভাবে কৃষ্টপুর এলাকায় একটি চুরের সিন্ডিগ্রেট তৈরি করে ছিল হোসেন। সে সিন্ডিগ্রেডে ছিল অন্তর নামে এক ছেলে। অন্তর ৫ বছর ধরে নিখোজ। তার পরিবারের দাবী জাহাঙ্গীরের মত অন্তরকে হোসেন আলীসহ তার ছেলেরা গুম করে রেখেছে । এ নিয়ে একটি চাঞ্চল্যকর সৃষ্টি হচ্ছে কৃষ্টপুর এলাকায়। গত কয়েক দিন আগে অন্তরের পরিবার সংরক্ষিত মহিলা এমপি ফাতেমা জহুরা রাণী কাছে হোসেন আলী গুম করেছে বলে অভিযোগ করেন । মোবাইল চুরির ঘটনায় বেশ কয়েকবার থানায় যেতে হয়েছে হোসেনের। এ নিয়ে একাধিক থানায় জিডি করা হয়েছে বলে সুত্র জানায়।

জানাযায়, গত বৃহস্পতিবার দুপুরে প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মবিনুর রহমানের নেতৃত্বে তিন সদস্যের একটি দল তদন্ত যান কলোনীতে । সে সময় কৃষ্টপুরের এলাকার লোক জন গুম খুন,মাদক ব্যবসা সাথে জড়িত,একাধীক বিয়ে করায় অভিযোগ প্রদান করেন। এলাকার সাধারণ মানুষ অভিযোগ করেন জাহাঙ্গীর হত্যা মামলাসহ অন্তরকে গুম করে ফেলছে হোসেনসহ হোসেনের ছেলেরা।

মবিনুর রহমান বলেন, কলোনীর সাংবিধানিক ৩ কেউ ভঙ্গ করলে তা তদন্তে প্রমাণিত হলে তার বরাদ্দকৃত ঘর বাতিল বলে গণ্য হবে। তাই সকালে সরেজমিনে এসে বাদী এবং বিবাদী পক্ষের বক্তব্য শুনে তা কোড করে নেয়া হয়েছে। সমাজ বিরোধী অপরাধের অভিযোগ সরেজমিনে গিয়ে প্রমাণও পাওয়া গেছে। দ্রæত তদন্তের রিপোর্ট জেলা ত্রাণ ও পূর্নবাসন কর্মকর্তা বরাবর পাঠানো হবে। তাদের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানান তিনি।

কৃষ্টপুর সরকারী আদর্শ কলোনির সাধারন সম্পাদক মাসুদ রানা রনি জানান, গত কয়েক বছর ধরে কলোনীতে থাকা জাতীয় স্বেচ্ছাসেবক পাট্রির নেতা হোসেন আলী তার ছেলে রিপন, রাসেল এবং আনোয়ার হোসেনের ছেলে নাঈমের অত্যাচারে কলোনীর মানুষ অতিষ্ঠ। তাই আমরা এইসব অত্যাচার সইতে না পেরে তাদের নামে কলোনিতে বরাদ্দকৃত ঘর বাতিলের দাবি জানিয়ে লিখিত অভিযোগ দেই। সরকার দ্রæত তাদের নামে বরাদ্দকৃত ঘর বাতিল করে কলোনী বাসিকে স্বাভাবিক ভাবে চলার সুযোগ করে দেবে বলে আমরা আশাবাদী।

 

মন্তব্য করুন