রেফারির ভুল সিদ্ধান্তে ড্র করে মাঠ ছাড়তে হল মেসি-সুয়ারেজদের

0
1323

বার্সেলোনা এবং ভ্যালেন্সিয়ার খেলায়  রেফারির ভুল সিদ্ধান্তে ড্র করে মাঠ ছাড়তে হল  মেসি-সুয়ারেজদের।

ভ্যালেন্সিয়া নিজেদের মাঠে ম্যাচের শুরু থেকেই শক্ত রক্ষণে পরীক্ষা নিয়েছে বার্সেলোনার আক্রমণভাগের। মেসি-সুয়ারেজরা খেলা জমিয়ে কেবল গোলটাই আদায় করতে পারছিলেন না। এরে মাঝেই ম্যাচের ৩০ মিনিটে রেফারি করে বসেন ভুল।
এসময় বক্সের বাইরে থেকে মেসির নেয়া শট ঠেকাতে গিয়ে তালগোল পাকিয়ে বসেন গোলরক্ষক নেতো। বল হাত ফসকে তার দুপায়ের ফাঁক গলে গোললাইন পেরিয়ে যায়। দ্রুত নিজেকে সামলে নিয়ে ঝাঁপিয়ে পড়ে বল বাইরেও ঠেলে দেন তিনি। কিন্তু ততক্ষণে বল গোললাইনের প্রায় ইঞ্চি পাঁচের ভেতরে চলে যায়। রেফারি ও লাইন্সম্যান চোখাচোখি করে সেটিকে আবার গোল নয় বলে মত দেন। পরে টিভি রিপ্লে পরিষ্কার দেখাচ্ছিল, গোললাইনের ভেতরে বল ড্রপ খাওয়ার পর তা বাইরে ঠেলেছেন স্বাগতিক গোলরক্ষক।

হকচকিত বার্সা খেলোয়াড়রা যেন বিশ্বাস করে উঠত পারছিলেন না। এরমাঝেই দ্রুত আরও দুটি সুযোগ আসে বার্সার। প্রথমে মেসির দূরপাল্লার ফ্রি-কিক ও পরে লুইস সুয়ারেজের শট ঠেকিয়ে দেন ব্রাজিলিয়ান সেই গোলরক্ষক নেতোই।

গোলশূন্য প্রথমার্ধের পর ম্যাচের ৬০ মিনিটে এগিয়ে যায় ভ্যালেন্সিয়াই। ডিফেন্ডার হোসে গ্যায়ার বাড়ানো বলে স্বাগতিক দর্শকদের আনন্দে ভাসান রদ্রিগো। পূর্ণ পয়েন্ট হারাতে বসা বার্সার আরেকটি আক্রমণ ৭৪ মিনিটের সময় ঠেকিয়ে দেন নেতো।

পরে ৮২ মিনিটে জর্ডি আলবার গোলে অন্তত এক পয়েন্ট নিয়ে ফিরতে পেরেছে বার্সেলোনা। গোলে মেসির অবদানও সমান। ফুটবল জাদুকরের নিখুত মাপে বাতাসে ভাসানো বল দর্শনীয় ভলিতে প্রতিপক্ষ জালে জড়িয়ে দেন আলবা। মৌসুমে তার প্রথম গোল এটি।

এই ড্রয়ে ১৩ ম্যাচে ৩৫ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের শীর্ষেই থাকল বার্সেলোনা। ৪ পয়েন্ট কম নিয়ে দ্বিতীয় স্থানে ভ্যালেন্সিয়া। সমান ২৭ পয়েন্ট নিয়ে গোল পার্থক্যে যথাক্রমে তৃতীয় ও চতুর্থ স্থানে অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদ আর রিয়াল মাদ্রিদ

মন্তব্য করুন