যুবলীগের সাংগঠনিক দক্ষতায় মহানগর আওয়ামিলীগে স্থান করে নিলেন রুমেল

0
56

স্টাফ রিপোটার: প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক, বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ, ময়মনসিংহ মহানগর শাখা। বর্তমান উক্ত পদে বিগত ২৫/০৯/২০২৩ তারিখে প্রকাশিত মহানগর আওয়ামিলীগের নবগঠিত কমিটিতে নিযুক্ত হয়েছেন ময়মনসিংহে উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত এক নাম মোঃ আসাদুজ্জামান রুমেল। তিনি দলকে সুসংগঠিত রাখতে কেন্দ্রীয় নির্দেশনা অনুযায়ী দলের বিভিন্ন কর্মকান্ডে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন নিরবে। শুধু দলকে সুসংগঠিত নয়, ইতিমধ্যে তৃনমূলের কর্মীদের কাছে ব্যাপক গ্রহণ যোগ্যতাও অর্জন করেছেন আসাদুজ্জামান রুমেল কাজের মাধ্যমে। মুক্তিযোদ্ধা পিতামহের পরিবার থেকে বেড়ে উঠে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বুকে ধারণ করে ছোটবেলা থেকেই শুরু করেন আওয়ামীলীগের রাজনৈতিক জীবন।

বাংলাদেশ ছাত্রলীগ দর্শন বিভাগ আনন্দমোহন কলেজ শাখার সাবেক সভাপতি ( ২০০৫-২০১০)। ময়মনসিংহ জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সদস্য (২০০৬-২০১০)। সাবেক ছাত্রলীগের জেলা সাধারণ সম্পাদক পদপ্রার্থী ছিলাম ২০১০ সালে।বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ ময়মনসিংহ জেলা শাখার সদস্য আহবায়ক কমিটি। ১৪নং ওয়ার্ড মহানগর আওয়ামলীগের কমিটির কার্যনিবার্হী সদস্য। তাছাড়া আওয়ামীলীগের অঙ্গ সহযোগি সংগঠনের বিভিন্ন পদে দায়িত্ব পালন করেছেন তিনি।

সামাজিক কর্মকান্ডে রুমেলের কিছু উল্লেখযোগ্য পদচিহ্নঃ
১। ময়মনসিংহ জেলা শাখার বিডিএইড সহ-সভাপতি।
২। জেলা সেভ দ্যা ফিউচার ফাউন্ডেশনের উপদেষ্টা।
৩।জেলা বঙ্গবন্ধু মেডিকেল টেকনোলজিস্ট পরিষদের উপদেষ্টা।
৪। জেলা মানবতার সেবা সংস্থার উপদেষ্টা।
৫। ময়মনসিংহ হেল্প প্লাস উপদেষ্টা,
৬। প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি চরপাড়া সততা যুব সংগঠনসহ বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনের সাথে সমপৃক্ত আছেন রুমেল। উক্ত সততা যুয সংগঠনকে সাথে নিয়ে সময়ের প্রয়োজনে কখনও খাদ্যসামগ্রী বিতরণ, কখনও বন্যাদুর্গতদের জন্য ত্রান বিতরণ, কখনও ঈদ উপলক্ষে অসহায় মানুষদের ঘরে ঈদের সামগ্রী পাঠানোসহ এসব কাজ হরহামেশাই প্রতক্ষ্য করা যায় ময়মনসিংহের সাধারণ মানুষের সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের প্রোফাইলে প্রোফাইলে।

মানবিকতায় রুমেলঃ উনার ভাষ্যমতে, “মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার প্রতিটি নিদের্শনা ও কেন্দ্রীয় কমিটির নিদের্শে প্রতিটি কাজ করার জন্য চেষ্টা করে থাকি”। করোনা মহামারি ও বন্যা কবলিত এলাকায়, স্থানীয় অসহায় হতদরিদ্র মানুষের মাঝে খাদ্য সামগ্রী, চিকিৎসা উপকরণ, বস্ত্র বিতরণসহ সবসময় মানবিক ও সামাজিক কাজ করে চলেছেন এই তৃণমূল মানবিক নেতা। আওয়ামী সরকারের উন্নয়নমুলক কর্মকান্ড জনগণের নিকট তুলে ধরতে বিভিন্ন প্রচার-প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন প্রতিনিয়ত।
এমনি আরেকটি চ্যালেঞ্জ নিয়ে বসেন তিনি সম্প্রতি। নবগঠিত ময়মনসিংহ মহানগর আওয়ামিলীগ এর নবনির্বাচিত কমিটির পরিচিতি সভায় (১২/১০/২৩) ঘোষণা করেন আগামী ২ মাসের একটি পরিকল্পনার কথা। আমূল পরিবর্তন আসতে চলেছে দলীয় যোগাযোগ ব্যবস্থায়। যা ঘোষনার পর থেকে আলোচনার শীর্ষে আছেন রুমেল। সাহসিকতা ও বুদ্ধিমত্তার মাধ্যমে আধুনিক প্রযুক্তির এমন সাংগঠনিক ব্যবহার ইতোপূর্বে খুব একটা দেখা যায়নি রাজনীতির মাঠে। প্রতিমূহুর্তের কর্মসূচী ও দলীয় নির্দেশনা নেতাকর্মীদের হাতে হাতে পৌছে যেতে শুরু করেছেন “বাল্ক ম্যাসেজিং নোটিফিকেশন সিস্টেম” যার দ্বারা প্রতিমূহুর্তে পৌছে যাবে দলীয় নির্দেশনাসমূহ। নির্বাচনের এই বছরকে লক্ষ্য করে আওয়ামিলীগ সরকারের যাবতীয় উন্নয়নসমূহ জনসাধারণের সামনে তুলে ধরার কয়েকটি পরিকল্পনার কথাও উল্লেখ করেন তিনি। এমনকি একটি প্রচারণামূলক বই “বাংলাদেশের একাল-সেকাল” প্রকাশনা করতে যাচ্ছেন উনি, যেখানে দৈনন্দিন জীবনের প্রতিটি উপাদান যা পূর্বে কেমন ছিলো আর বর্তমান শেখ হাসিনা সরকার তা কোন পর্যায়ে নিয়ে গেছেন তার সাবলীল এবং তুলনামূলক আলোচনা দৃশ্যায়িত করা হবে। যা জনসাধারণকে নৈতিক সিদ্ধান্ত নিতে সহায়তা করবে যে কেন তারা বর্তমান সরকারকে পুনরায় ভোট দিয়ে নির্বাচিত করবে। নেতা-কর্মীদের সাথে আলাপ চারিতায় জানা যায়, তৃনমূলের সাধারণ কর্মীদের মাঝে আসাদুজ্জামান রুমেলকে নিয়ে বেশ আগ্রহ ও প্রাণচঞ্চল রাজনৈতিক পরিবেশ সৃষ্টি হয়েছে। দলকে আরো গতিশীল করার জন্য কাজ করে যাবেন তিনি বলে সুত্রকে জানিয়েছেন এবং সংগঠনের প্রতি অঙ্গীকার করেছেন তিনি।

সাধারণ কর্মীদের সাথে আলোচনায় উঠে আসে যে সময়োপযোগী এসব ভিন্নরকম উদ্যোগ, মানসিক দক্ষতা এবং সাহসী মনোভাবের কারণেই আজ যুবলীগের সদস্য থাকাকালীন মহানগর আওয়ামিলীগ এর মতো গুরুত্বপূর্ণ পদে জায়গা করে নিয়েছেন।

মন্তব্য করুন