পদ্মা সেতুতে মাথা লাগবে গুজব রটনাকারী গ্রেফতার

0
902

স্টাফ রিপোটার: পদ্মাসেতুতে মাথা লাগার গুজব ফেক আইডি খুলে পদ্মাসেতুতে মাথা লাগার গুজব, নানা অপ্রচার ও সাধারণ মানুষের মাঝে ভীতিকর পরিস্থিতির মাধ্যমে আতংক সৃষ্টি এবং সরকারের উন্নয়ন কর্মকান্ডকে বাঁধাগ্রস্থ করার হীন চক্রান্তের অভিযোগে বিল্লাল হোসেন নামের একজনকে ময়মনসিংহ ডিবি পুলিশ গ্রেফতার করেছে। কুমিল্লার বাঙ্গুরা বাজার থেকে শুক্রবার তাকে গ্রেফতার করা হয়। ময়মনসিংহের পুলিশ সুপার শাহ আবিদ হোসেন শনিবার দুপুরে পুলিশ লাইন্স হলরুমে প্রেস ব্রিফিংয়ে এ তথ্য জানান।

পুলিশ সুপার আরো জানান, ময়মনসিংহের নান্দাইল উপজেলার রসুলপুর গ্রামের আমিনুল ইসলাম নামক এক ব্যক্তির জাতীয় পরিচয়পত্র (এনআইডি) ব্যবহার করে একটি মোবাইল সীম দিয়ে কুমিল্লার বাঙ্গুরা বাজার এলাকার বিল্লাল হোসেন ফেইসবুকের ফেক আইডি খুলে। পরবর্তী আমিনুল ইসলামের জাতীয় পরিচয়পত্রের বিপরীতে ইস্যুকৃত সিম ব্যবহার করে বিল্লাল হোসেন তার ফেইসবুক (ফেক) আইডি থেকে বিভিন্ন ধরণের মিথ্যা বিভ্রান্তিকর তথ্য সোস্যাল মিডিয়াতে প্রচার করতে থাকে। তিনি বলেন, ময়মনসিংহ পুলিশ বিভাগে এ ধরণের তথ্য প্রকাশ পাওয়ায় জেলা পুলিশের নির্দেশে ডিবিও ওসি শাহ কামাল আকন্দের নেতৃত্বে ডিবির এলআইসি বিভাগের সাথে এসআই আক্রাম হোসেন তদন্ত শুরু করে।

ষড়যন্ত্রকারী একটি মহল নানা ধরনের বিভ্রান্তিমূলক তথ্য ও গুজব ছড়িয়ে দেশকে অস্থিতিশীল করে তুলতে চাই। এ ধারাবাহিকতায় ওই চক্র প্রথমে ফেসবুকসহ বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ‘পদ্মা সেতু নির্মাণে মানুষের মাথা লাগবে’- এমন ভিত্তিহীন খবর প্রচারণার চেষ্টা চালিয়েছে। ময়মনসিংহ গোয়েন্দাদের তৎপরতায় ষড়যন্ত্রকারীদের এ মিশন ব্যর্থ হওয়ার পর তারা ছেলেধরা ও গলাকাটা বোরখা বাহিনীর মাঠে নামার গল্প ফেঁদে চারদিকে আতঙ্ক ছড়াচ্ছে। উদ্বিগ্ন এ পরিস্থিতিতে গুজব ছড়িয়ে আতঙ্ক সৃষ্টিকারীদের দ্রম্নত শনাক্ত করতে ডিবি এসআই আক্রাম হোসেন মাঠে নেমে দায়িত্ব নিয়ে একজনকে কুমিল্লা থেকে গ্রেফতার করেন।

 

তদন্তকালে দেখা যায়, বিল্লাল হোসেন তার ঐ ফেক আইডি থেকে গত ১৯ জুলাই তারিখে আপনার সন্তানকে সতর্ক অবস্থায় রাখুন। সবে মাত্র সিলেটের গোয়াইনঘাট উপজেলার আলীরগাঁও ইউনিয়নের রাউতগ্রামে পাবলিকের হাতে ধরা পড়লো কথিত তিনজন গলাকাটা। একসাথে তারা ৫জন ছিলো। এখানে তাড়া খেয়ে পালাতে গিয়ে বাকি দুইহন ধরা পড়লো পাশের গ্রাম চিতামইনে। তাদের গাড়িও আটক করা হয়েছে। গত ২৩ জুলাই কল্লা কাটতে গিয়েছিল। পাড়ার মানুষ ধরে গনধুলাই দিয়ে বেহুস করে ফেলেছে। একই তারিখে কল্লা কেটে পালিয়ে যাওয়ার সময় ধরা খেল আর গন ধোলাই দিল-ভিডিওটি দেখুন। লোকটি কল্লা কাটতে গিয়ে ধরা খেল। গনধোলাইও খেল। গনধোলাই খেয়ে বেহুস হয়ে গেল। এর আগের দিন ২২ জুলাই তারিখে দেখুন ইন্ডিয়াতে কিভাবে মুসলমানদের ঘরবাড়ী আগুন দিয়ে জালাইয়া দিচ্ছে হিন্দুরা-সকলে শেয়ার করুন।

২০ জুলাই তারিখে হে আল্লাহ মুসলিমদের হেফাজত করুন। চীনের মুসলিমদের দেখার কেউ নেই, দেখুন তাদের উপর কি ভয়ংকর নির্যাতন হচ্ছে। ১৭ জুলাই তারিখে ছড়িয়ে দিন সবার মাঝে! কুকুর দিয়ে নির্যাতন চালাচ্ছে, কাশ্মীরের নিরিহ মুসলমানদের উপর। এ ধরণের একাধিক পোষ্ট দিয়ে দেশব্যাপী সাধারণ মানুষের মাঝে আতংক সৃষ্টির মাধ্যমে গুজব ছড়িয়ে জনগণকে রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে উসকে দিয়ে আইন শৃংখলা পরিস্থিতির অবনতি ঘটিয়ে দেশব্যাপী বিশৃংখলা তৈরীর চেষ্ঠা করে আসছে। তদন্তশেষে বিল্লাল হোসেনকে কুমিল্লা থেকে গ্রেফতার করা হয়।

প্রেসক ব্রিফিংয়ে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার হুমায়ুন কবির, জয়িতা শিল্পী, কোতোয়ালী মডেল থানার ওসি মাহমুদুল ইসলাম, ডিআইওয়ান মোখলেছুর রহমান আকন্দ, ডিবির ওসি শাহ কামাল আকন্দ, এসআই আকরাম হোসেনসহ অন্যান্যরা উপস্থিত ছিলেন। ব্রিফিংশেষে ডিবির ওসি জানান, গুজব রটনাকারী বিল্লাল হোসেনের সাথে জড়িত অন্যান্যদেরও গ্রেফতারের চেষ্ঠা চলছে।

মন্তব্য করুন