নকল করার দায়ে ৭ পরীক্ষার্থীকে কারাদন্ড দিয়েছেন ভ্রাম্যমান আদালত

0
1465

গোপালগঞ্জ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে অনার্স প্রথম বর্ষের “এ”-ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষায় ডিভাইস ব্যবহার করে নকল করার দায়ে ৭ পরীক্ষার্থীকে ২০ দিন করে কারাদন্ড দিয়েছেন ভ্রাম্যমান আদালত।

শুক্রবার (১৭ নভেম্বর) দুপুরে ভ্রাম্যমান আদালতের বিচারক ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট আব্দুল্লাহ আল মামুন এ সাজা প্রদান করেন।

সাজাপ্রাপ্ত পরীক্ষার্থীরা হলেন, বরিশালের উজিরপুর উপজেলার আবদুল কুদ্দুসের ছেলে তানভীর, মাদারীপুরের রাজৈর উপজেলার শহিদুল হকের ছেলে পলাশ মাতুব্বর, একই জেলার একই উপজেলার শান্তর ছেলে সৌরভ, যশোরের বাঘারপাড়া উপজেলার আমুরিয়া গ্রামের শামসুল হকের ছেলে জয় ইমামুল, ময়মনসিংহের গফরগা্ওঁ উপজেলার মোঃ শাহজাহানের ছেলে ইকবাল, ঢাকার কেরানীগঞ্জের আব্দুল মালেকের ছেলে মোঃ কাওসার, কুড়িগ্রামের কাঠালবাড়ী গ্রামের আইয়ুব আলী ছেলে উৎস।

বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে জানাগেছে, গোপালগঞ্জ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে অনার্স প্রথম বর্ষের “এ”-ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা আজ শুক্রবার ১০টায় অনুষ্ঠিত হয়। এসময় বিভিন্ন পরীক্ষার হলে সাজাপ্রাপ্ত ৭ পরীক্ষার্থী ইলেক্ট্রনিক্স ডিভাইস ব্যবহার নকল করছিলেন। পরে তাদের দেহ তল্লাসী করে ডিভাইস উদ্ধার করে ও তাদের আটক করে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।

পরে আটককৃতদের ভ্রাম্যমান আদালতে সোপর্দ করা হলে ভ্রাম্যমান আদালতের বিচারক স্বাক্ষ্য প্রমাণের ভিত্তিতে প্রত্যেককে ২০ দিনের কারাদন্ড প্রদান করে জেল হাজতে প্রেরনের নির্দেশ দেন। সাজাপ্রাপ্তদের জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়।

এর আগে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. খোন্দকার নাসিরউদ্দিন বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসসহ গোপালগঞ্জ শহরের ৫টি পরীক্ষা কেন্দ্র পরিদর্শন করেন। ভর্তি পরীক্ষা সুষ্ঠু পরিবেশে সম্পন্ন হওয়ায় তিনি সংশ্লিষ্ট সকলকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানান। এছাড়া আজ দুপুর ২টায় বি ইউনিট এবং আগামীকাল শনিবার সকাল ১০টায় সি ইউনিট ও দুপুর ২টায় এইচ ইউনিটের পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের জনসংযোগ কর্মকর্তা মোঃ মাহবুবুল আলম স্বাক্ষরিত প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানিয়েছেন।

মন্তব্য করুন