ডিবি,র সাথে বন্দুকযুদ্ধে আন্তঃজেলা মাদক ব্যবসায়ী রশিদ নিহত-এক পুলিশ আহত

0
1225

স্টাফ রিপোটার:  ময়মনসিংহ ডিবি পুলিশের সাথে বন্ধুকযুদ্ধে এক আন্তঃজেলা মাদক ব্যবসায়ী নিহত হয়েছে। তার নাম আব্দুর রশিদ। সে ঈশ্বরগঞ্জের ঘাগড়া গ্রামের হাফিজ উদ্দিনের ছেলে। এ সময় ডিবির শামীম আল মামুন নামে এক এসআই আহত হন। পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে ২শত গ্রাম হেরোইন, একশত পিচ ইয়াবা ও ৫ টি কাতুজের খোসা উদ্ধার করে। তার বিরুদ্ধে কমপক্ষে ১৩ টি মামলা রয়েছে বলে পুলিশ জানায়। বৃহস্পতিবার মধ্যরাতে ঈশ্বরগঞ্জের সারহাইল এলাকায় এ বন্ধুকযুদ্ধ হয়।

ডিবির ওসি শাহ কামাল আকন্দ জানান,পুলিশ সুপার শাহ আবিদ হোসেনের নিদেশে ডিবি পুলিশ নিয়মিত মাদক বিরোধী অভিযান চালিয়ে আসছে। চলমান মাদক বিরোধী অভিযানের অংশ হিসাবে ডিবি’র দুইটি টিম অদ্য বুধবার রাতে ঈশ্বরগঞ্জ থানা এলাকায় মাদক বিরোধী অভিযান চালায়। এ সময় গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জানা যায়, ঈশ্বরগঞ্জ থানাধীন সারহাইল নামক স্থানে আন্তঃজেলা মাদক ব্যবসায়ী রশিদ বিপুল পরিমাণ মাদক দ্রব্য বিক্রয়ের জন্য অবস্থান করছে। এ খবর ডিউটিরত টিমের কাছ থেকে পেয়ে দ্রুত নিদেশ দিলে ডিবি’র দুইটি টিম ঘটানাস্থলে যায়। উক্ত স্থানে পৌছা মাত্রই সংঘবদ্ধ মাদক ব্যবসায়ীরা পুলিশকে লক্ষ্য করে অতর্কিতভাবে গুলি করতে থাকে। তাদের গুলিতে এক পুলিশ সদস্য আহত হয়। পুলিশ সরকারী সম্পদ এবং আত্নরক্ষার্থে শর্টগানের ফাঁকা গুলি বর্ষণ করে। এক পর্যায়ে সংঘবদ্ধ মাদক ব্যবসায়ীরা গুলি করতে করতে পালিয়ে যায়। ঘটনাস্থল থেকে মাদক ব্যবসায়ী আঃ রশিদকে আহত অবস্থায় পায় পুলিশ। এ সম তার কাছ থেকে দুইশত গ্রাম হেরোইন, একশত পিস ইয়াবা ট্যাবলেট ও ০৫টি কার্তুজের উদ্ধার করে।

পলাতক মাদক ব্যবসায়ীদের ছোরা গুলিতে আহত মাদক ব্যবসায়ীকে ঈশ্বরগঞ্জ থানা পুলিশের সহায়তায় উদ্ধার করে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য পাঠানো হলে কর্তব্যরত ডাক্তার তাকে মৃত ঘোষণা করেন। নিহত মাদক ব্যবসায়ী রশিদের বিরুদ্ধে ১৩ টি মাদকের মামলা রয়েছে। এছাড়া আহত এসআই শামীম আল মামুনকে উদ্ধার করে পুলিশ লাইন্স হাসপাতালে ভতি করা হয়েছে।

মন্তব্য করুন