ডিবি’র অভিযানে পিকনিক বাসে গার্মেন্টকর্মী হত্যা মামলার দুই আসামী গ্রেফতার- আদালতে স্বিকারোক্তি

0
501

ময়মনসিংহের ত্রিশালে পিকনিকের বাসে গার্মেন্টস কর্মী রাফিকুল ইসলাম হত্যা মামলার দুই আসামিকে গ্রেফতার করেছে ময়মনসিঙহ ডিবি পুলিশ। তারা হলো জাহিদুল ইসলাম ও শামীম মিয়া। ঢাকার মিরপুর থেকে জেলা গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) ওসি শাহ কামাল আকন্দের নেতৃত্বে ডিবি পুলিশ ঢাকার মিরপুর থেকে রবিবার গ্রেফতার করে। তাদেরকে সোমবার আদালতে পাঠানো হলে জাহিদুল ইসলাম স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি প্রদান করেছে। এছাড়া শামীম মিয়ার ৫ দিনের রিমান্ড চেয়ে আবেদন করেছেন তদন্তকারী কর্মকর্তা। সোমবার দুপুরে সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক সুব্রত ঘোষ শুভ জাহিদুলের জবানবন্দি গ্রহন করেন। এছাড়াও মামলার সাী ওমর ফারুক অন্তর আদালতে জবানবন্দি প্রদান করেছে। এরা সকলেই মিরপুরের ওরিয়ন ফ্যাশনের শ্রমিক বরে জানা গেছে।

পুলিশ জানায়, শুক্রবার সকালে ঢাকা থেকে ৭টি বাসে করে ওরিয়ন ফ্যাশনের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা ময়মনসিংহের ত্রিশালের বইলর এলাকার গ্রীন ভিলেজ পার্কে পিকনিকে আসেন। রাস্তার পাশে পার্কিং অবস্থায় রাখা একটি বাসে রফিকুল ইসলাম নামে এক গার্মেন্টস কর্মীকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করা হয়। পরদিন তিনজনের নামসহ অজ্ঞাত কয়েকজনের নামে মামলা করে নিহতের পরিবার। জেলা গোয়েন্দা পুলিশের ওসি শাহ কামাল আকন্দ বলেন, ওরিয়ান গ্রুফ (গার্মেন্টস) ইব্রাহিম পুলপাড়, মিরপুর, কাফরুল, ঢাকার প্রোডাকশন ম্যানেজার ইকবাল, ফোর ইনচার্জ শরিফ মিজানুল হক এবং সিনটেক্স টেক্সটাইল মিলস এর ফিনিশিং প্রোডাকশন ম্যানেজার লিটন’দের নেতৃত্বে উক্ত গার্মেন্টস এর ৩০০/৩৫০ জন কর্মী (নারী/পুরুষ) ৭টি ভাড়া বাসযোগে আনন্দ ভ্রমণের উদ্দেশ্যে রওনা করে সকাল প্রায় সাড়ে দশটার দিকে ময়মনসিংহের ত্রিশালের কাঁঠাল ইউনিয়নের সিংরাইল একই কোম্পানীর গ্রীন ভিলেজ পার্কে আসে। পার্কের মধ্যে তারা দুপুরের খাওয়া দাওয়ার পরে আনন্দ করতে থাকে। ঐ সময় পার্কের মধ্যে রাখা উক্ত ৭টি বাসের মধ্যে ২ নং সিরিয়ালের তাজ ট্রান্সপোর্ট মিনি সার্ভিসের মধ্যে সকলের অগোচরে আনন্দ ভ্রমনে অজ্ঞাত কয়েকজন সহকর্মী রফিকুল ইসলাম (২৫) শ্বাসরোধ করে খুন করে বাসের মধ্যে রেখে দেয়। এ ঘটনায় নিহতের মা কুলসুমা বাদী হয়ে ত্রিশাল থানার মামলা নং-২১, তারিখ-১৪/০৩/২০২০ ইং, ধারা-৩০২/২০১/৩৪ পেনাল কোড দায়ের করে। মামলাটি অধিক গুরুত্বের সাথে বিবেচনায় নিয়ে পুলিশ সুপার আহমার উজ্জামানের নির্দেশে জেলা গোয়েন্দা পুলিশের ওসি শাহ কামাল আকন্দের নেতৃত্বে এসআই পরিমল চন্দ্র সরকার সংগীয় অফিসার ফোর্সসহ অভিযান পরিচালনা করে। অভিযানে ঢাকা মিরপুর থেকে তথ্যাকান্ডে জড়িত অন্যতম আসামী জাহিদুল ইসলাম ও শামীম মিয়াকে গ্রেফতার করা হয়। এছাড়া ঘটনার প্রত্য সাী স্বেচ্ছায় বিজ্ঞ আদালতে ফৌঃ কাঃ বিঃ ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি প্রদান করেছে।
এছাড়াও ডিবি ধর্ষণ মামলার ১ আসামী ও ৪ মাদক কারবারীকে গ্রেফতার করে। এ সময় ৮০ পিস ইয়াবা ট্যাবলেট উদ্ধার করে।

ওসি শাহ কামাল আকন্দ আরো জানান, ডিবির পুলিশ পুরিদর্শক ফারুক আহম্মেদ নান্দাইলে অভিযান পরিচালনা করে ঈশ্বরগঞ্জ থানার মামলা নং-৪৩, তারিখ-২৯/১২/২০১৯ ইং ধারা-নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন ২০০০(সংশোধন/২০০৩) এর ৯(৩)/৩০ এর এজাহার নামীয় আসামী আক্তার হোসেনকে গ্রেফতার করে। এছাড়া এসআই শামীম আল মামুন সংগীয় অফিসার ফোর্সসহ জেলা সদরের বেগুনবাড়ী থেকে ২০ পিস ইয়াবা ট্যাবলেট সহ মাদক ব্যবসায়ী আঃ রহমান, মাহমুদুল হাসানকে এবং এসআই সাইদুজ্জামান সংগীয় অফিসার ফোর্সসহ ত্রিশালের বাহাদুর পুর থেকে ৬০ পিস ইয়াবা ট্যাবলেটসহ মাদক ব্যবসায়ী ওমর আলী কসাই ও মাহবুল হাসানকে গ্রেফতার করে।

মন্তব্য করুন