কাকরাইলে মা-ছেলে হত্যায় আটক-১

0
652

রাজধানীর কাকরাইলে নিজ বাসায় মা-ছেলেকে গলাকেটে হত্যার ঘটনায় এক অভিনেত্রীকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করেছে পুলিশ। তার নাম শারমিন আক্তার মুক্তা।  তিনি নিহত সামসুন নাহারের স্বামী আবদুল করিমের তৃতীয় স্ত্রী।

আজ বৃহস্পতিবার সকালে রমন্ থানার পুলিশ তাকে আটক করে থানায় নিয়ে যায়।

বুধবার সন্ধ্যায় কাকরাইলের ৭৯/১ নম্বর বাড়ির পঞ্চম তলা থেকে মা সামসুন নাহার এবং চার তলার সিঁড়ি থেকে ছেলে শাওনের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। শাওন কাকরাইলের উইলস লিটল ফ্লাওয়ার স্কুল অ্যান্ড কলেজের ‘ও’ লেভেলের ছাত্র ছিল।

ঘটনার সময় শাওনের বাবা আবদুল করিম বাসায় ছিলেন না। তিনি ব্যবসায়িক কাজে বাইরে ছিলেন বলে জানা গেছে। শাওনরা তিন ভাই। বাকি দুই ভাই লন্ডনে থাকেন।

ওই বাসার গৃহকর্মী রাশিদা বেগমের ভাষ্য, মাগরিবের নামাজের আগে তিনি ওই বাসায় কাজে যান। রান্নাঘরে বেসিনের নিচে বসে তিন থালাবাসন পরিষ্কার করছিলেন। এ সময় হঠাৎ কেউ রান্নাঘরের দরজা বন্ধ করে দেয়। এ সময় তিনি বাসার ভেতর থেকে ‘মাগো’ শব্দ শুনতে পান। অনেকক্ষণ পরে তার ডাক-চিৎকারে দারোয়ান এসে দরজা খুলে দিলে তিনি এই ঘটনা দেখতে পান।

এর আগে গতকাল বুধবার রাতে কয়েকজনকে জিজ্ঞাসাদের জন্য পুলিশ নিয়ে যায় বলে জানিয়েছেন ঢাকা মহানগর পুলিশের অপরাধ বিভাগের যুগ্ম কমিশনার কৃষ্ণপদ রায়।

মুক্তাকে আটকের সত্যতা নিশ্চিত করে রমনা মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা কাজী মাঈনুল ইসলাম বলেন, অভিনেত্রী শারমিন মুক্তাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আনা হয়েছে।

মন্তব্য করুন