করোনা যুদ্ধা রুমেল’এর সম্মাননা ক্রেস্ট যুবলীগ কে উৎসর্গ

0
576

একজন প্রকৃত করোনা যোদ্ধা চরপাড়া এলাকার আসাদুজ্জামান রুমেল

‘জীবে প্রেম করে যেই জন, সেই জন সেবিছে ঈশ্বর’ স্বামী বিবেকানন্দের এই বাণী নানা সময়ে নানান মানুষের মধ্যে প্রতিফলিত হতে দেখেছি আমরা। তবে বিশাল এ পৃথিবীতে এই মানুষগুলোর সংখ্যা একেবারেই যৎসামান্য। তারপরও এই মানুষগুলি আছে বলেই আহাজারি পৃথিবীটা এখনও বাঁচার স্বপ্ন দেখে। হৃদয়হীনা দরিয়ায় ভালোবাসার মেলবন্ধন তৈরি করা এক অসাধারণ পুরুষের গল্প বলব আজ।

আসাদুজ্জান রুমেল। তিনি ময়মনসিংহ চরপাড়া এলাকার সততা যুব সংগঠনের প্রতিষ্ঠাতা তিনি। জেলা যুবলীগের সদস্য। তিনি করোনাকালে চরপাড়া এলাকাসহ আশেপাশে গরিব অসহায়দের পাশে দাড়িয়েছেন। তিনি তার দায়িত্বের গন্ডি পেরিয়ে জাতি-ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সকলের হৃদয় স্পর্শ করেছেন।

‘মানুষ মানুষের জন্য, জীবন জীবনের জন্য’ এই দায়িত্ববোধ থেকেই করোনার সংকটময় মুহূর্তে তিনি ক্লান্তিহীনভাবে সকাল-সন্ধ্যা ছুঁটে বেড়াচ্ছেন ক্ষুধার্ত মানুষের খোঁজে। দাঁড়াচ্ছেন পাশে, দিচ্ছে নানা সহায়তা, জোগাচ্ছেন সাহস আর প্রেরণা। দেশে মহামারি করোনা সনাক্ত হওয়ার পরপরই জনসচেতনতায় তৎপর হন।

শুধুই কি সাধারণ মানুষ হিসেবেই তার এই দায়িত্ববোধ? না, তার সুবিশাল কর্মজ্ঞ সে কথা বলে না। তিনি বৃত্তশালীদের দেখিয়ে দিয়েছেন ইচ্ছাশক্তি মানুষকে কোথায় পৌঁছে দিতে পারে। করোনার মধ্যে নিজের জীবনের ঝুঁকি নিয়ে নিম্নবিত্ত মানুষের সঙ্গে তৈরি করেছেন ভালোবাসার এক মেলবন্ধন।

করোনার এই সংকটকালীন মুহূর্তে খাদ্যসহায়তা ছাড়াও তিনি অসুস্থ মানুষগুলোর জন্য বাড়িয়েছেন সাহায্যের হাত। ইতোমধ্যে শতাধিক অসহায় মানুষদের নগদ অর্থসহায়তাও প্রদান করেছেন। এই দুঃসময়ে সর্বদা তাদের পাশে থাকার প্রত্যয়ও ব্যক্ত করেছেন তিনি।

এই মানুষটি করোনার সংকটময় মুহূর্তে মসজিদের ইমাম, মুয়াজ্জিন নিয়মিত খোঁজ খবর রাখছেন এবং সহায়তাও করছেন। এছাড়াও দারিদ্র্যপীড়িত মানুষের ঘরেও পৌঁছে দিয়েছেন এসব খাদ্যসহায়তা। পাশাপাশি বিভিন্ন জায়গায় বিতরণ করছেন ইফতার, ঈদ সামগ্রী। এভাবে অসাম্প্রদায়িক একটি সেতুবন্ধন তৈরি করে চলেছেন তিনা।

আসাদুজ্জামান রুমেলর সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, সাবেক মাননীয় ধর্মমন্ত্রী ও তার ছেলের পথচলার তার বড় অনুপ্রেরণা। আমার এই সম্মাননা ক্রেস্ট যুবলীগ কে উৎসর্গ করলাম।

ময়মনসিংহ চরপাড়া এলাকার সততা যুব সংগঠনের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান হিসাবে একটি মানবিক সমাজ বিনির্মানে নিঃস্বার্থভাবে কাজ করে যাচ্ছেন দীর্ঘদিন। একজন মানবিক মানুষ হিসেবে তিনি মানুষের স্বপ্ন সারথি হয়ে বেঁচে থাকুক।

হিন্দু-মুসলিম সহ সব ধর্মের মানুষের কাছে তিনি একজন প্রিয় মানুষ। শুধু জনপ্রতিনিধি নয়, মানবসেবায় যেন তিনি আজ চরপাড়াবাসীর কাছে আকাশরাজির নক্ষত্র। তার ক্লান্তিহীন কর্মজ্ঞ মানুষের মাঝে আস্থা, ভরসা আর ভালোবাসার একটি জায়গা তৈরি করে নিয়েছে।

মন্তব্য করুন